সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০
  • প্রচ্ছদ » লিড নিউজ ১ » কুমিল্লায় যুবলীগ কর্মী জিল্লুর হত্যা ৫ দিনের রিমান্ডে কাদের, অন্যরা অধরা


কুমিল্লায় যুবলীগ কর্মী জিল্লুর হত্যা ৫ দিনের রিমান্ডে কাদের, অন্যরা অধরা


আমাদের কুমিল্লা .কম :
18.11.2020

স্টাফ রিপোর্টার।।
কুমিল্লায় যুবলীগ কর্মী জিল্লুর রহমান চৌধুরী ওরফে গোলাম জিলানী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া আসামি আবদুল কাদেরের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। কাদের ওই মামলার ৯ নম্বর আসামি। তবে আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের ৮ দিন পার হলেও ঘটনার অভিযুক্ত অন্য আসামিরা এখনো অধরাই রয়ে গেছে। আসামি আবদুল কাদের গ্রেপ্তার হয়েছিলেন হত্যাকাণ্ডের দিনই। তিনি সদর দক্ষিণ থানার কালিকিংকরপুর গ্রামের আলী আজমের ছেলে।
আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গত ১১ নভেম্বর নগরীর চৌয়ারায় যুবলীগ কর্মী জিল্লুর রহমান চৌধুরীকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী। ঘটনার পরদিন তাঁর ভাই ইমরান হোসেন চৌধুরী সদর দক্ষিণ থানায় ২৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ১০ থেকে ১৫ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
পুলিশ সূত্র জানায়, গ্রেপ্তারকৃত আসামি আবদুল কাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর দক্ষিণ মডেল থানার উপ-পরিদর্শক খালেকুজ্জামান। বুধবার দুপুরে কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এর ৯ নম্বর আমলী আদালতের বিচারক মো.জালাল উদ্দিন আবেদনের শুনানি শেষে আসামি আবদুল কাদেরের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কমল কৃষ্ণ ধর বলেন, আমরা মামলাটি অত্যান্ত গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করছি। মামলার ৯ নম্বর আসামির ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। শিগগিরই তাকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। আশা করছি জিজ্ঞাসাবাদে তার কাছ থেকে হত্যায় জড়িতদের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাবো। এছাড়াও আমরা হত্যায় জড়িত আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রেখেছি।
মামলার বাদী ও নিহত জিল্লুর রহমানের ছোট ভাই ইমরান হোসেন চৌধুরী বলেন, পুলিশ ঘটনার মূলহোতাসহ মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারে দৃশ্যমান কোন তৎপরতা চালাচ্ছে না। আমাদের পুরো পরিবার আসামিদের ভয়ে এখনো তটস্থ। তাদের গ্রেপ্তার করা না কেউই নিরাপদ নয়। তাই দ্রুত তাদের গ্রেপ্তারের দাবি জানাই।
উল্লেখ্য- যুবলীগ কর্মী জিল্লুর রহমান চৌধুরী ওরফে গোলাম জিলানী হত্যা মামলায় কুমিল্লা মহানগর যুবলীগ আহ্বায়ক আবদুল্লাহ আল মাহমুদ সহিদ, সিটি কাউন্সিলর আবুল হাসান, আবদুস সাত্তার, কোতয়ালী থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আহম্মেদ নিয়াজ পাভেল, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি জহিরুল ইসলাম রিন্টুসহ ২৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। জিল্লুকে নিজের কর্মী দাবি করেছেন কুমিল্লার সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য আঞ্জুম সুলতানা সীমা। এদিকে নিহতের ভাই ইমরান চৌধুরী বাদী হয়ে যাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন তাদের অধিকাংশ কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর আসনের এমপি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের সমর্থক।