রবিবার ১৭ জানুয়ারী ২০২১


২০৪১ সালের বাংলাদেশে এই জরাজীর্ণ টাউন হল চলতে পারে না


আমাদের কুমিল্লা .কম :
03.12.2020

সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ে এমপি বাহার

মাহফুজ নান্টু/আবদুর রহমান ।।
কুমিল্লা বীরচন্দ্র গণপাঠাগার ও নগর মিলনায়তন (টাউন হল) নিয়ে কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার বলেন, এই টাউন হলের বর্তমান ভবনটি ১৯৩৩ সালে নির্মিত হয়েছে। আগামীর ২০৪১ সালের বাংলাদেশে এই জরাজীর্ণ টাউন হল চলতে পারে না। আমি আধুনিক টাউন হল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছি। কিন্তু কুমিল্লার কুচক্রী মহল এটার বিরোধিতা শুরু করেছে। তারা দেশের ৫০ জন বুদ্ধিজীবীকে ভুল বুঝিয়ে তাদের দিয়ে বিবৃতি দিয়েছে। এখন এটা নিয়ে কমিটি হয়েছে। ওই কমিটি রিপোর্ট দিবে এটা পুরাকীর্তিতে যাবে কি না। এখানে গণশুনানি হবে। আমি বলছি কুমিল্লা টাউন হল পুরাকীর্তিতে যাবার কোন সুযোগ নেই। আর কোন বুদ্ধিজীবী নয়, আধুনিক টাউন হল হবে কি না সেই সিদ্ধান্ত নিবে কুমিল্লার জনগণ। এখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের অনেকে আমাকে পছন্দ করেন না,আমিও অনেককে পছন্দ করিনা। তবে কুমিল্লা বিভাগ ও টাউন হলের বিষয়ে সবার সহযোগিতা চাই।
বৃহস্পতিবার দুপুরে কুমিল্লা বীরচন্দ্র গণ পাঠাগার ও নগর মিলনায়তনে (টাউন হল অডিটোরিয়াম) কুমিল্লার উন্নয়ন ও সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। প্রথম দফায় ১ঘন্টা ১০মিনিট বক্তব্য ও প্রশ্নের উত্তরে তিনি বিগত সময়ে কুমিল্লার বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেন। এছাড়া পরিবহন সেক্টরে ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি করেন। মতবিনিময়ের চিঠি দেয়া হলেও ব্যানার করা হয় সংবাদ সম্মেলনের। লিখিত কোন পত্র দেয়া হয়নি। এমপি বাহার অবশ্য বলেছেন, মতবিনিময় হওয়ায় লিখিত দেয়া হয়নি।
তিনি বলেন,এক সময় কুমিল্লা কান্দিরপাড়ে মুচিদের নিকট থেকে চাঁদা নিতো। জলযোগ মিষ্টির দোকান থেকে বাবর নামের একজন প্রত্যেক দিন এক কেজি করে মিষ্টি নিতো। আমি সেগুলো বন্ধ করেছি।
নির্বাচিত হওয়ার পরিবহন ব্যবসায়ীরা এসে বললেন,বাহার ভাই আপনাকে কত দিতে হবে। আমি বলেছি কেন আমাকে দিতে হবে। আমাকে দেয়া লাগবে না। আমি রাজনীতি করি। প্রয়োজনে জনসভায় বাস দিয়ে সহযোগিতা করবেন।
কুমিল্লা বিভাগ নিয়ে এমপি বাহার বলেন, আমি দীর্ঘদিন কুমিল্লার মানুষকে নিয়ে বিভাগের জন্য আন্দোলন করছি। আমার নেত্রী শেখ হাসিনা কুমিল্লায় এসেও ঘোষণা করেছেন কুমিল্লা বিভাগ হবে। কুমিল্লায় বিভাগ বাস্তবায়নের জন্য কুমিল্লা অঞ্চলের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

‘আফজল খান পরিবারের দুর্নীতি প্রমাণ করতে না পারলে পদত্যাগ করবো’
স্টাফ রিপোর্টার।।
কুমিল্লার প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা আফজল খান ও তার পরিবারের নিয়ে এমপি বাহার বলেন, আফজল খান ও তার স্ত্রী ২২বছরে কুমিল্লা মর্ডান স্কুলের ৩০/৪০ কোটি টাকা লুটপাট করে খেয়েছে। তার প্রমাণ করতে না পারলে পার্লামেন্ট থেকে পদত্যাগ করবো। তাদের পরিবার কুমিল্লায় বিভিন্ন অপকর্ম করেছে। তাদের হাত থেকে মর্ডান স্কুল উদ্ধার হয়েছে। ২০১৫ সাল পর্যন্ত তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকাকালীয় সময়ে স্কুলের ফান্ড ছিলো ৫৪ লক্ষ টাকা। আর এখন আছে সাত কোটির বেশি।
বৃহস্পতিবার কুমিল্লা বীরচন্দ্র গণ পাঠাগার ও নগর মিলনায়তনে কুমিল্লার উন্নয়ন ও সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

‘অর্থমন্ত্রী ও মতিন খসরু কুমিল্লাকে ধারণ করেন না’
স্টাফ রিপোর্টার।।
জেলার আরও ১০জন এমপির সাথে বসে কুমিল্লার উন্নয়ন করা যায় কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে এমপি বলেন,পরিকল্পনা মন্ত্রী থাকার সময় বর্তমান অর্থমন্ত্রীকে বলেছি মডার্ন স্কুলের জন্য বরাদ্দ দিতে। তিনি সেই কাজ অনুমোদন করেননি। তিনি কুমিল্লার স্থলে ময়নামতি বিভাগ করতে চান। শাসনগাছা ফ্লাইওভার নির্মাণ করার সময় আবদুল মতিন খসরু এমপি আপত্তি করেছেন। তাদের সাথে কিভাবে বসবো। তারা কুমিল্লাকে ধারণ করে না, আমি কুমিল্লাকে ধারণ করি। তবে এলজিআরডি মন্ত্রী তাজুল ইসলামের সাথে আমার ভালো সম্পর্ক। সে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে করোনা ল্যাব স্থাপনের সময় বরাদ্দ দিয়েছে।
বৃহস্পতিবার কুমিল্লা বীরচন্দ্র গণ পাঠাগার ও নগর মিলনায়তনে কুমিল্লার উন্নয়ন ও সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

‘জিল্লুর হত্যা নিয়ে এমপি সীমা ও ইমরান আমার বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েছে‘
স্টাফ রিপোর্টার।।
যুবলীগ কর্মী জিল্লুর রহমান চৌধুরী ওরফে গোলাম জিলানী হত্যার প্রসঙ্গে এমপি বাহার বলেছেন, চৌয়ারায় নিহত জিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে ছয়টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে একটি ডাকাতি মামলায় সে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত। সে ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল হত্যা মামলার আসামি। আমি যতদূর জানি সে খুন হয়েছে চৌয়ারা বাজারের ভাগাভাগি নিয়ে। তবে আমরাও তার হত্যার বিচার চাই। অথচ তাকে যুবলীগ কর্মী সাজিয়ে রাজনীতি শুরু করেছে একটি মহল। তারা সাজানো ভাবে জিল্লুর হত্যা মামলায় অনেক রাজনৈতিক নেতাদের জড়িয়েছে। আমি পরিস্কার করে বলে দিতে চাই। আগে এই হত্যা মামলার নিরপেক্ষ তদন্ত করতে হবে, এরপর গ্রেফতার। তদন্তে আমার দলের কোন কর্মী জড়িত থাকার প্রমাণ থাকলে তারও বিচার হবে। হত্যাকাণ্ড দিয়ে আফজল খানের মেয়ে এমপি সীমা ও তার ছেলে ইমরান টিভিতে আমার বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েছে। তবে লাশের রাজনীতি কুমিল্লায় চলবে না। লাশ নিয়ে কুমিল্লায় রাজনৈতিক ফায়দা লুটার কোন সুযোগ নেই।
বৃহস্পতিবার কুমিল্লা বীরচন্দ্র গণ পাঠাগার ও নগর মিলনায়তনে কুমিল্লার উন্নয়ন ও সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আলোচনায় ডিসি মালেক
স্টাফ রিপোর্টার।।
বৃহস্পতিবার কুমিল্লা বীরচন্দ্র গণ পাঠাগার ও নগর মিলনায়তনে কুমিল্লার উন্নয়ন ও সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এমপি বাহার বলেন, আমি দেশের সবচেয়ে কম বয়সের পৌর চেয়ারম্যান। একটি বেহাল পৌরসভাকে তিন বছরে প্রথম শ্রেণীতে উন্নীত করেছি। সিটি করপোরেশন গঠনে কুমিল্লার বাসিন্দা আইনমন্ত্রী সফিক আহমেদকে দিয়ে সিটি করপোরেশন আইন পরিবর্তন করেছি। একটি মহল ডিসি মালেককে অভিনন্দন জানায়।