শুক্রবার ২২ জানুয়ারী ২০২১
  • প্রচ্ছদ » sub lead 1 » সরকারি ঘর দেওয়ার নামে শতাধিক ব্যক্তির টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ


সরকারি ঘর দেওয়ার নামে শতাধিক ব্যক্তির টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ


আমাদের কুমিল্লা .কম :
21.12.2020

বাঞ্ছারামপুর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে শতাধিক গৃহহীন ও দরিদ্রদেরকে সরকারি ঘর দেওয়ার নামে ১০ লাখ টাকার বেশি হাতিয়ে নিয়েছে সোনারামপুর ইউপি মেম্বার শাহজাহান মিয়া। টাকা ফেরত চাইলে উল্টো হুমকি মিলছে তাদের। রোববার এই বিষয়ে চরমরিচাকান্দি গ্রামের ২৮জন ভুক্তভোগী বাঞ্ছারামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার সোনারামপুর ইউনিয়নের চর মরিচাকান্দি ও আশেপাশের এলাকার শতাধিক গরীব, অসহায় ও গৃহহীনকে প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে ভিটিপাকা ঘর দেওয়ার কথা বলে প্রত্যেকের কাছ থেকে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিয়েছে সোনারামপুর ইউনিয়ন পরিষদের ২নং ওয়ার্ড মেম্বার শাহজাহান মিয়া। ঘর বুঝে না পেয়ে টাকা ফেরত চাইলে উল্টো হুমকি-ধমকি মিলেছে অসহায় মানুষগুলোর।

কেউ সুদে, কেউ ধার করে মেম্বারকে টাকা দিয়েছেন। ৩ বছর ধরে মিথ্যা আশ^াস দিয়ে দরিদ্রদের প্রায় ১০ থেকে ১২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন শাহজাহান মিয়া। টাকা ফেরত চাইলে দায় চাপাতে চাচ্ছেন সোনারামপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শাহিন আহমেদের উপর।
এবিষয়ে যোগাযোগ করা হলে শাহজাহান মেম্বার টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়ে কিছুটা এড়িয়ে গিয়ে বলেন, তিনি ৩৬ জনের কাছ থেকে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা করে নিয়ে চেয়ারম্যানকে দিয়েছেন।

এবিষয়ে চরমরিচাকান্দি গ্রামের ইব্রাহিম মিয়া অভিযোগ করে বলেন, “ধার দেনা করে শাহজাহান মেম্বারকে ১০ হাজার টাকা দিছি সরকারি ঘর দেওয়ার জন্য। টাকাও দেয় না ঘরও দেয় না।”
এব্যাপারে চরমরিচাকান্দি গ্রামের রুশিয়া বেগম বলেন, “মেম্বর (শাহজাহান মেম্বার) সরকারের ঘর দিব কইয়া (বলে) ১০ হাজার টেহা (টাকা) নিয়া মাসের পর মাস খালি ঘুরাইতেছে। কইলেই (বললে) মেম্বর খালি (শুধু) ডর-ভয় দেখায়। আমরা আর ঘর চাই না, আমরা টেহা (টাকা) ফেরৎ চাই। ”
যোগাযোগ করা হলে ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ বলেন, দরিদ্রদের কাছ থেকে মেম্বার টাকা নেয়ার কথা জানতে পেরে শাহাজাহান মেম্বারকে ফেরত দিতে বলেছেন। বিষয়টি তিনি ইউএনওকেও মৌখিকভাবে জানিয়েছেন। মেম্বারের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করার কথা জানান তিনি।

এবিষয়ে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন সরোয়ার বলেন, চরমরিচাকান্দি গ্রামের ২৮জন দরিদ্র মানুষ শাহজাহান মেম্বারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে। তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তদন্তে প্রমাণিত হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।