শনিবার ২৩ জানুয়ারী ২০২১
  • প্রচ্ছদ » sub lead 1 » ‘ নগরীতে শৃঙ্খলা ফেরাতে উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে’


‘ নগরীতে শৃঙ্খলা ফেরাতে উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে’


আমাদের কুমিল্লা .কম :
10.01.2021

১০ মাস পর বসলো জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা


মাহফুজ নান্টু
করেনা ভাইরাাসের সংক্রমণ মহামারিতে থেমে যাওয়া কুমিল্লা জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা আবারো ১০ মাস পর অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা প্রশাসক মোঃ আবুল ফজল মীরের সভাপতিত্বে গতকাল বেলা ১১টা থেকে ৪ ঘন্টা ব্যাপী এই সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভাতে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সকল সদস্যরাই উপস্থিত ছিলেন। দীর্ঘদিন পর আবারো আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হওয়ায় জেলার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সরব ছিলেন সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যান, প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিগণ। অপরাধ ও সামাজিক সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনায় মুখর ছিলো সভা। করোনায় জন সমাবেশ নিষিদ্ধ থাকায় জুম আ্যপসের মাধ্যমে গত ১০ মাস এই সভা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছিলো। আবারো সশরীরে সভাতে অংশগ্রহণ করতে পেরে খুশি হয়েছেন বলে জানিয়েছেন অংশগ্রহনকারীরা।
নবাগত পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ, নব-নির্বাচিত ব্রাহ্মণপাড়া ও দাউদকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যানদের শুভেচ্ছা জানানো হয় সভায়।
সভা শেষে কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মোঃ আবুল ফজল মীর জানান, ইজারাদার ছাড়া গোমতী নদী থেকে আর কেউ অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন ও মাটি কাটতে পারবে না। এব্যাপারে জেলা প্রশাসনের নিয়মিত পর্যবেক্ষণ থাকবে। ওয়াজ মাহফিলের বিষয়ে কড়াকড়ি নির্দেশনা দিয়ে জানানো হয়, অনুমতি ব্যাতীত কোথাও কোন প্রকার ওয়াজ মাহফিল করা যাবে না। ওয়াজ মাহফিল, মসজিদ মাদ্রাসা নির্মাণের নামে রাস্তা ব্যারিকেড দিয়ে চাঁদা আদায় করা যাবে না। কুমিল্লা নগরীতে শৃঙ্খলা ফেরাতে উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে।
সভায় পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ জানান, কুমিল্লাবাসী সচেতন। তাদের দেয়া তথ্যে আমরা বেশ কিছু অপরাধীকে আটক করেছি। আটকদের বেশির ভাগই চুরি-ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত। তাদের অনেকেই একাধিক মামলার আসামি। সভায় যেসব অনিয়মের কথা উঠেছে সেগুলো সমাধানে জেলাপুলিশ বদ্ধ পরিকর। তবে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে নতুন যোগদান করা পুলিশ সুপার সবার সহযোগিতা চান।
সভার আলোচনায় কমিটির সদস্যরা বলেন,সরকারের বা প্রশাসনের কোন প্রকার অনুমতি না নিয়ে যত্রতত্র মাদ্রাসা তৈরি হচ্ছে,এ বিষয়ে তদারকির আহবান জানান। টমসমব্রিজের যানজট নিরসনে স্থায়ী সিএনজি স্ট্যান্ড করা,যত্রতত্র গাড়ি ও মালামাল রেখে যানজট যেন তৈরি করতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
সিভিল সার্জন ডা. নিয়াতুজ্জামান জানান, করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা থামাতে সবাইকে বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। এবিষয়ে জেলাপ্রশাসন যে টানা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছেন তা প্রশংসনীয় এবং তা অব্যাহত রাখতে হবে।
দাউদকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সুমন মাস্কের বিষয়ে আরো কঠোর অভিযান পরিচালনার দাবি জানান।
র‌্যাব কুমিল্লার অধিনায়ক মেজর তালুকদার নাজমুস সাকিব জানান, কুমিল্লাবাসী অপরাধের তথ্য দিলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিবো। আমরা আমাদের নিয়মিত অপরাধ দমন কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।
সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ও বিরোধী দলীয় চিপ হুইপ অধ্যাপক রওশন আরা মান্নান কুমিল্লার বিভিন্ন এলাকা থেকে মাদক নিরসনে প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ কামনা করেন।
মেঘনা উপজেলা চেয়ারম্যান রতন শিকদার অভিযোগ করে বলেন,মেঘনা নদী দিয়ে প্রতিটি ট্রলার থেকে ৪/৫ হাজার টাকা করে চাদা দিতে হয়। এ চাঁদাবাজি থামাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি তিনি আহবান জানান।
মুরাদনগরে ডাকাতির প্রবণতা বৃদ্ধি ও চিহ্নিত একাধিক মাদক মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে যেন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের প্রতি ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানান মুরাদনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আহসানুল আলম সরকার কিশোর।
অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আরিফুল ইসলাম সরদারের সঞ্চালনায় এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য আঞ্জুম সুলতানা সীমা, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম টুটুল, সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার, সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী মীর শওকত, জেলা পিপি জহিরুল ইসলাম সেলিমসহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রধান, উপজেলা চেয়ারম্যান ও কমিটির অন্যান্য সদস্যরা।