শুক্রবার ১৭ †m‡Þ¤^i ২০২১
  • প্রচ্ছদ » sub lead 2 » ডাঃ মোসলেহ উদ্দিন আহমেদের শিশু স্বাস্থ্যের টুকিটাকি


ডাঃ মোসলেহ উদ্দিন আহমেদের শিশু স্বাস্থ্যের টুকিটাকি


আমাদের কুমিল্লা .কম :
07.07.2021

গ্রন্থালোচনা

————- মতিন সৈকত

গ্রন্থের নামঃ শিশু স্বাস্থ্যের টুকিটাকি
লেখকঃ অধ্যাপক ডা. মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ
প্রকাশকালঃ বই মেলা ২০১১
প্রকাশকঃ ডা. রোকসানা বেগম
প্রচ্ছদঃ মাসুক হেলাল
মুদ্রণঃ ইন্ডাষ্ট্রিয়েল প্রেস, কুমিল্লা
বিনিময়ঃ তিনশত টাকা। ইউ,এসঃ ১০ ডলার।
উৎসর্গঃ লেখকের পিতা-মাতাঃ মরহুম মোঃ জোনাব আলী মাস্টার ও মরহুমা মোসাম্মৎ জাহানারা বেগম
পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ২০০
অফসেট পেপারে ছাপা
শক্ত মলাটের চমৎকার বাইন্ডিং
নান্দনিক প্রচ্ছদের বইটি আকর্ষণীয়।

লেখকের সংক্ষিপ্ত পরিচিতিঃ দেশ-জাতির কল্যাণে নিজেকে উৎসর্গ করে যাঁরা পরবর্তী প্রজন্মের জন্য মানব সেবার আদর্শ দৃষ্টান্ত স্থাপন করে যাচ্ছেন তাঁদের অন্যতম কুমিল্লার মহিরুহ অধ্যাপক ডা. মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ। তিনি বহুগুনান্বিত একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও সমাজকর্মী।
স্বীকৃত জার্নালে তাঁর ৩২টি বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। শিশু স্বাস্থ্যের টুকিটাকি, আঞ্চলিক পরিবেশ আন্দোলন, করোনাযুদ্ধ তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থ। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে জাতীয় দৈনিক এবং সাময়িকীতে সমসাময়িক বিষয়ে তিনি লেখালেখি করছেন। ১৯৮০ সালে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। সে সময়ে তিনি ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি ছিলেন। সরকারি মেডিকেলে অফিসার পদে কর্মজীবন শুরু করেন। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের অন্যতম যোদ্ধা তিনি। মেডিকেল কলেজটি প্রতিষ্ঠার পরে সেখানে প্রভাষক পদে যুক্ত হয়ে শিক্ষকতার মহত্ত্ব-মমত্ত,দায়িত্ব-কর্তব্যে নিজেকে গড়ে তুলেন। পর্য়ায়ক্রমে তিনি সফলতার স্বর্ণ শিখরে আরোহন করেন।সহকারী অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, অধ্যাপক, উপাধ্যক্ষ পদে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। পাঁচ বছর অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন শেষে সন্মানের সাথে অবসরে যান। শিক্ষকতার পেশায় থাকার সময় তিনি পিজি হাসপাতালে ট্রান্সফিউশন মেডিসিনে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি যুক্তরাজ্যের গ্লাসগো রয়েল কলেজ অব ফিজিশিয়ান থেকে এফআরসিপি ডিগ্রি অর্জন করেন। ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজ জার্নালের তিনি প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও এডিটর ইন চিফ। ১৯৮৪ সালে কুমিল্লা মেডিকেল এসোসিয়েশন পূণরায় সংগঠিত করে তিনি সাধারণ সম্পাদক এবং পরবর্তীতে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। কুমিল্লার ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজ তাঁর উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয়। সিডি প্যাথ এন্ড হাসপাতাল প্রতিষ্ঠায় তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।
তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্বিবদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য ছিলেন। ২০১০থেকে ২০১৬ পর্যন্ত বাংলা দেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিলে কুমিল্লা অঞ্চলের প্রতিনিধিত্ত করেন। ২০১২ সালে তিনি ব্লাড ট্রান্সফিউশন সোসাইটি অব বাংলাদেশের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ঢাকায় অনুষ্ঠিত এশিয়ায় এসোসিয়েশন অব ট্রান্সফিউশন মেডেসিন সম্মেলনের তিনি সফল সংগঠক।
২০১৭-১৮ সেসনে তিনি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট মেম্বার ছিলেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আন্তর্জাতিক সেমিনারে তিনি বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ত করেন। পেশাগত দায়িত্ব পালন ছাড়াও তিনি অনেক দেশ ভ্রমণ করে নিজেকে সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি সে অভিজ্ঞতা জ্ঞানে অন্যদেরকে শাণিত করেন। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপা’র কুমিল্লা অঞ্চলের সভাপতি ডা.অধ্যাপক মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ আপাদমস্তক একজন কর্মবীর। তাঁর রক্তে মননে মানবসেবা উজ্জীবিত। কারো কোনো উপকার করতে পারলে তিনি পরিতৃপ্ত হন।
অধ্যাপক ডাঃ মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ বিনয়ী, সদালাপী, মিষ্টিভাষী, ধৈর্য্যশীল, পরোপকারী ও প্ররিশ্রমী। তিনি হৃদয়বান চিকিৎসকের পাশাপাশি মানবাধিকারকর্মী এবং বহু কল্যাণমূলক সংগঠন ও সংস্হার নেতৃত্বশীল ব্যাক্তিত্ত।
তাঁর রচিত বইগুলো পিতা-মাতা, শিক্ষকদের-কে উৎসর্গ করে অনান্য দৃষ্টান্ত স্হাপন করেছেন। লেখকের সুস্বাস্থ্য- দীর্ঘ জীবন কামনার পাশাপাশি আরো সৃজনশীল বিজ্ঞানভিত্তিক গবেষণাধর্মী বই চাই।
অধ্যাপক ডাঃ মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ স্যারের প্রকাশিত তিনটি বই মানবিক বিজ্ঞান বিষয়ক উঁচু স্তরের বই। প্রত্যেকটি বই তাঁর নিজ হাতে অটোগ্রাফসহ আমি উপহার পেয়ে সন্মানিতবোধ করছি।বইগুলো নিয়ে পত্রিকার পাতায় বিশ্লেষণের চেষ্টা করেছি।

শিশু স্বাস্থ্যের টুকিটাকি গ্রন্থে ১৬ টি চ্যাপ্টারে ৯৭ টি শিরোনাম বিস্তারিত বিশ্লেষণ যে কোনো ডাক্তারতো বটেই সাধারণ শিক্ষিতদের জন্য ও অভিধানের কাজ করবে। বইটি জনস্বাস্থ্য এবং শিশু স্বাস্থ্যের এক মাইলফলক।

★ নবজাতক ব্যবস্থাপনা অধ্যায়ে রয়েছে ৮ টি বিষয়ে বিস্তারিত বিশ্লেষণ।

১ নবজাতকের যত্ন
২ সুস্থ নবজাতক চেনার উপায়
৩ নবজাতকের আঘাত জনিত সমস্যা
৪ জন্মাবধি বিদ্যমান নবজাতকের ব্যাধিসমূহ
৫ ডায়াবেটিক মায়ের নবজাতক
৬ শিশু যত্নের প্রথম পাঁচ বছর
৭ নবজাতকের জন্ডিস
৮ শিশুর ও নবজাতকের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ।

★ খাদ্য ও পুষ্টি বিদ্যা অধ্যায়ে আছে ৭ টি বিষয়ে বিস্তারিত বিশ্লেষণ।

৯ মায়ের দুধ শিশুর শ্রেষ্ট ও একমাত্র খাবার ১০ শিশুর আহার
১১ শিশু খাদ্য
১২ খাদ্য ও পুষ্টি
১৩ শিশুর পরিপুরক খাবার
১৪ স্তনপানের অভ্যাস ছাড়ানো (উইনিং)
১৫ বিশেষ অবস্থায় স্তন্যপান।

★ শিশুর উন্নতি ও ক্রমবিকাশ অধ্যায়ে স্হান পেয়েছে ৭ টি বিষয়।

১৬ শিশুর বুদ্ধিমত্তা ও আচরণ উন্নয়নে লক্ষনীয় দিক সমূহ
১৭ শিশুর গড়নে পিতা-মাতার লক্ষনীয় দিকসমূহ -১
১৮ শিশুর গড়নে পিতা-মাতার লক্ষনীয় দিকসমূহ -২
১৯ শিশুর গড়নে পিতা-মাতার লক্ষনীয় দিকসমূহ -৩
২০ শিশুর দেহের উন্নয়ন ও বৃদ্ধি সাধন
২১ শিশুর বৃদ্ধিতে ত্রুটি
২২ শিশুর উন্নয়ন ও ক্রমবিকাশ

★ পুষ্টি সমস্যা অধ্যায়ে উল্লেখ করেন ৭টি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

২৩ শিশুস্বাস্থ্যে ভিটামিন -এ
২৪ শিশুস্বাস্থ্যে ভিটামিন -ডি
২৫ শিশু স্বাস্থ্যে ভিটামিন -ই ও ভিটামিন -কে ২৬ শিশু স্বাস্থ্যে ভিটামিন -বি কমপ্লেক্স
২৭ শিশু স্বাস্থ্যে ভিটামিন- সি
২৮ শিশু স্বাস্থ্যে ক্ষুদ্র উপাদান (ট্রেইস ইলিমেন্ট)
২৯ অপুষ্টি জনিত রোগ

★সংক্রামক ব্যাধি সমূহ অধ্যায়ে আছে ১৩ টি শিরোনামে বিশ্লেষণ।

৩০ ডিপথেরিয়া
৩১ টাইফয়েড সম্পর্কে জেনে নিন
৩২ হুপিং কাশি
৩৩ শিশুদের টিটেনাস
৩৪ মামস (এপিডেমিক পেরটাইটিস)
৩৫ শিশুদের হাম
৩৬ পলিওমাইলাটিস
৩৭ শিশুদের যক্ষারোগ
৩৮ জ্বর
৩৯ শিশুদের ডেঙ্গুজ্বর
৪০ শিশুদের এইডস
৪১ জলবসন্ত (চিকেন পক্স)
৪২ রোগ সংক্রমণ মুক্তকরণ (ইমিউনাইজেশন)

★ নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলীয় শিশুরোগ সমূহে অধ্যায়ে আছে ৪টি বিষয়।

৪৩ ডায়রিয়াজনিত প্রশ্নোত্তর
৪৪ কৃমিজনিত সমস্যা
৪৫ ম্যালেরিয়া
৪৬ কালাজ্বর

★ শ্বাসতন্ত্রের ব্যাধি অধ্যায়ে আছে ৩টি বিষয়।

৪৭ শিশুকালে হাঁপানী
৪৮ নিউমোনিয়া
৪৯ একিউট ব্রংকিউলাইটাস

★ রক্ত রোগ অধ্যায়ে আছে ৬ টি বিষয়ের বিবরণ।

৫০ থেলসিমিয়ায় করণীয়
৫১ রক্তশূণ্যতা
৫২ রক্তক্ষরণ
৫৩ রক্তজমাট ত্রুটিজনিত সমস্যা (কোয়াগুলেশন ডিফেক্ট)
৫৪ আই,টি,পি
৫৫ রক্ত ও রক্তের উপাদান পরিসঞ্চালন

★কিডনি রোগ অধ্যায়ে আছে ৫ টি বিষয়ের বিবরণ।

৫৬ শিশুদের কিডনিরোগ -নেফ্রটিক সিনড্রোম
৫৭ নেফ্রাইটিস-(এপিএসজিএন)
৫৮ মূত্রনালীতে প্রদাহ (ইউটিআই)
৫৯ দেহের অম্ল ও ক্ষারে সমতা
৬০ দেহে ইলেকট্রলাইট নিয়ন্ত্রণ

★ যকৃতজনিত সমস্যা অধ্যায়ে আছে ৬ টি বিষয়ের বিশ্লেষণ।

৬১ জন্ডিস
৬২ হেপাটাইটিস
৬৩ ছিরছিস লিভার
৬৪ পোর্টাল হাইপার টেনশন
৬৫ শিশুদের লিভার এবসেস
৬৬ ঘাতক ব্যাধি-হেপাটাইসিস সি

★ রক্ত পরিবহনতন্ত্রীয় ব্যাধি অধ্যায়ে আছে ৩টি বিষয়ের বিশ্লেষণ।

৬৭ জন্ম থেকে হৃদরোগ
৬৮ রিউমাটিক ফিভার
৬৯ হার্ট ফেইলিউর

★ কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের রোগ অধ্যায়ে আছে ৬ টি বিষয়ের বিশ্লেষণ।

৭০ খিঁচুনি
৭১ মস্তিষ্কের আভ্যন্তরীণ সংক্রমণ
৭২ এনকেফাইলাটিস
৭৩ মৃগীরোগ (এপিলেপসি)
৭৪ মানসিক প্রতিবন্ধী
৭৫ সেরিব্রেল পলসি

★ ক্যান্সারজনিত রোগ অধ্যায়ে আছে ৩ টি বিষয়ের বিবরণ।

৭৬ লিউকেমিয়া
৭৭ লিমফমা
৭৮ কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের টিউমার

★ নালীহিন গ্রন্থিজনিত রোগ অধ্যায়ে আছে ৬টি বিষয়ের বিশ্লেষণ।

৭৯ এন্ডোক্রাইন ত্রুটি
৮০ থাইরয়েড গ্রন্থি
৮১ খর্বাকৃতি
৮২ ডায়বেটিস মেলটাইস
৮৩ টাইপ-১ ডায়াবেটিসের চিকিৎসা
৮৪ ডায়বেটিস চিকিৎসার আনুষাঙ্গিকতা

★ দৈবচক্রে বিষক্রিয়া অধ্যায়ে আছে ৮ টি বিষয়ের বিশ্লেষণ।

৮৫ সাপের কামড়
৮৬ শিশুদের দূর্ঘটনাজনিত বিষক্রিয়া
৮৭ শিশুদের সাধারণ বিষক্রিয়া
৮৮ শিশুদের জরুরি চিকিৎসা ( সামগ্রিক)
৮৯ শিশুদের জরুরি চিকিৎসাঃ এনফাইলেক্সিস
৯০ শিশুদের জরুরি চিকিৎসাঃ শক
৯১ শিশুদের জরুরি চিকিৎসাঃ চেতনাহীন শিশু
৯২ শিশুদের জরুরি চিকিৎসাঃ জলে ডুবা

★ রোগের লক্ষণাবলী অধ্যায়ে আছে ৫ টি বিষয়ের বিশ্লেষণ।

৯৩ ব্যাধির লক্ষণাবলী-১
৯৪ ব্যাধির লক্ষণাবলী-২
৯৫ ব্যাধির লক্ষণাবলী-৩
৯৬ ব্যাধির লক্ষণাবলী-৪
৯৭ ব্যাধির লক্ষণাবলী-৫

শিশু স্বাস্থ্যের টুকিটাকি বইটি থেকে অসংখ্য উদ্বৃত্তি উপস্থাপন করা যায়। বইটির পরতে পরতে জ্ঞানের ছড়াছড়ি আর চমৎকার সুন্দর সব চিকিৎসা বিজ্ঞানের বিশ্লেষণ। এক কথায় বইটি না পড়লে অনেক কিছু সারা জীবনের জন্য অজানা রয়ে যাবে।
লেখক: পরিবেশ সংগঠক ও শিক্ষাবিদ।