শনিবার ১৮ †m‡Þ¤^i ২০২১
  • প্রচ্ছদ » sub lead 1 » রেললাইনের পাশের জমি থেকে ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার


রেললাইনের পাশের জমি থেকে ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার


আমাদের কুমিল্লা .কম :
10.08.2021

ফারুক আহাম্মদ, ব্রাহ্মণপাড়াঃ
কুমিল্লা শহরের বাসা থেকে নিখোঁজ হওয়ার একদিন পর মঙ্গলবার দুপুরে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল এলাকায় রেল লাইনের পাশের একটি ধানের জমি থেকে সজল মিয়া (২৩) নামের এক প্রসাধনী সামগ্রীর ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুলিশ ও নিহতের পরিবার বলছেন, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। নিহতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। নিহত ব্যবসায়ী সজল মিয়া কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের পশ্চিম রেসকোর্সের শাসনগাছা এলাকার মৃত আবুল মিয়ার ছেলে। তিনি পেশায় একজন প্রসাধনী ব্যবসায়ী। তিনি অবিবাহিত ছিলেন। নিহতের পরিবার, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সজল মিয়া কুমিল্লা শহরের বিভিন্ন দোকানে প্রসাধনী সামগ্রী পাইকারি ধরে বিক্রি করেন। সে হিসেবে তিনি ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা শশীদল এলাকা থেকে বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে ভারতীয় প্রসাধনী ক্রয় করে নিয়ে যান। সজল মিয়া গত সোমবার প্রসাধনী সামগ্রী কিনতে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল এলাকায় এসেছিলেন। কিন্তু রাত হয়ে গেলেও তিনি বাসায় ফিরে যাননি। মা ও পরিবারের লোকজন তাকে বিভিন্ন স্থানে খুজেঁ বেড়াচ্ছিলেন। মঙ্গলবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল এলাকায় রেল লাইনের পাশের ধানের জমিতে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন। এ সময় কয়েকজন লোক তাকে চিনতে পারেন। পরে পরিবারের লোকজনকে খবর দেয় স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে নিহতের মা জোহরা আক্তার ও বড় ভাই সুমন মিয়া ও খালাত ভাই মিজানুর রহমান ঘটনাস্থলে এসে নিহতের লাশ শনাক্ত করেন। তারা পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপ্পেলা রাজু নাহা, উপরিদর্শক (এসআই) মফিজুল ইসলাম ও কুমিল্লা রেলওয়ে পুলিশ উপপরিদর্শক (এসআই) মো. ইসমাইল হোসেন ঘটনাস্থল আসেন। পরে ব্রাহ্মণপাড়া থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করেছে। লাশটির ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে। নিহতের মা জোহরা বেগম বলেন, সোমবার দুপুরে তাঁর ছেলে বাসা থেকে বের হয়ে আসলেও তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তার মুঠোফোনটিও বন্ধ ছিল। শশীদল এলাকার লোকজন তাকে ফোন দিয়ে লাশটি পড়ে থাকার খবর জানায়। তিনি বলেন, তার ছেলেকে খুন করা হয়েছে। খুনির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছেন তিনি। নিহতের বড় ভাই সুমন মিয়া ও খালাত ভাই মিজানুর রহমান বলেন, তাদের ভাই বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রী শহরের বিভিন্ন দোকানে পাইকারি দরে বিক্রি করেন। শশীদল এলাকার লোকজনদের কাছ থেকে পাইকারি দরে প্রসাধনী সামগ্রী কিনে আনতেন। কুমিল্লা রেলওয়ে পুলিশ উপপরিদর্শক (এসআই) মো. ইসমাইল হোসেন বলেন, লাশটি রেল লাইনের নির্দিষ্ট জায়গা থেকে দূরে হওয়ায় লাশটি ব্রাহ্মণপাড়া থানা পুলিশ উদ্ধার করেছেন। ব্রাহ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপ্পেলা রাজু নাহা বলেন, নিহতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।