শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১
Space Advertisement
Space For advertisement


মুরাদনগরের যুবলীগ নেতা এখন যুবদলের আহ্বায়ক !


আমাদের কুমিল্লা .কম :
22.09.2021

স্টাফ রিপোর্টার।।
কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা যুবলীগ নেতা সোহেল সামাদকে উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক, মাসুদ রানাকে সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ও সৈয়দ হাসান আহম্মেদকে সদস্য সচিব করে কমিটি ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় যুবদল। গত ২০ সেপ্টেম্বর কেন্দ্রীয় যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক ও দপ্তর সম্পাদক মো. কামরুজ্জামান দুলাল স্বাক্ষরিত ৩১ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা যুবদলের কমিটি ঘোষণা করেন। যুবলীগ নেতাকে যুবদলের আহ্বায়ক করায় উপজেলা যুবদলের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা এই কমিটি বাতিল না করলে গণপদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। জেলা যুবদলও এই কমিটির বিষয়ে জানেন না বলে জানা গেছে।
মুরাদনগর উপজেলা যুবদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা জানান, সোহেল সামাদ সারা জীবন আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেছেন। উপজেলা যুবলীগ নেতা হিসেবে সে বিভিন্ন সময় বিএনপি,যুবদল ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর নানা রকম হামলাসহ হয়রানি করেছে। স্থানীয় এমপিসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছে। শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদের অনুষ্ঠানে স্থানীয় এমপি ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন সাহেবের পাশে বসে অনুষ্ঠান উপভোগ করেছে সেই ছবিও আছে। এমন একজন আওয়ামী ঘরানার মানুষকে কীভাবে যুবদলের মতো দলের গুরুত্বপূর্ণ অংগসংগঠনের আহ্বায়ক করে। এই কমিটির বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবদলও জানে না বলে বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা জানান।
এ প্রসঙ্গে উপজেলা যুবদল নেতা জহিরুল ইসলাম জহির বলেন, সোহেল সামাদ যুবলীগ নেতা ও আশরাফ মুন্সি যুবলীগ কর্মী ছিলেন। সোহেল সামাদ ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের পক্ষে নির্বাচন করেছেন এবং একই বছর উপজেলা নির্বাচনও আওয়ামীলীগ প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন। সোহেল সামাদ কিছুদিন আগেও এমপি হারুন সাহেবের সাথে বসে শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদের অনুষ্ঠান করেছেন। তার দ্বারা আমরা অত্যাচারিত ও নির্যাতিত হয়েছি। জেলা যুবদলকে না জানিয়ে কার ইশারায়,কিসের লোভে কেন্দ্রীয় যুবদল তাকে আহ্বায়ক ও আশরাফ মুন্সিকে সদস্য করল, তা আমাদের বোধগম্য নয়।অবিলম্বে সোহেল সামাদকে আহ্বায়কের পদ থেকে অব্যাহতি না দিলে মুরাদনগর যুবদলের নেতাকর্মীরা গণপদত্যাগ করবে বলে তিনি জানান।
এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবদলের সভাপতি শাহাবুদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই কমিটি দিয়েছে কেন্দ্র। এখানে আমাদের কনসার্ন নেওয়া হয়নি। সুতরাং এই মুহূর্তে এ বিষয়ে কিছু বলতে পারব না।
অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে নব গঠিত উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক সোহেল সামাদ বলেন, আমার দলীয় প্রতিপক্ষরা প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে আমাকে যুবলীগ নেতা বলছে। এমপি হারুন সাহেবের সাথে শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদের একটি অনুষ্ঠানে থাকার বিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের এলাকায় একটি ফুটবল টুর্নামেন্ট ছিল। গ্রামের প্রতিনিধি হিসেবে আমি সেখানে ছিলাম।