শুক্রবার ৩০ জুলাই ২০২১


ঈদের ছুটিতে পর্যটকের ভিড় কক্সবাজারে


আমাদের কুমিল্লা .কম :
20.06.2018

ঈদের ছুটি এবার তেমন বেশি না হলেও পর্যটকের ভীড় জমেছে কক্সবাজারে। ঈদের দিন খানিকটা পর্যটক কম হলেও এরপর বেড়ে যায় ভ্রমণ পিপাসুদের সংখ্যা। তারা আন্দ-উচ্ছ্বাসে উপভোগ করছেন সমুদ্র শহরের সৌন্দর্য। দুর্যোগপূর্ণ পরিবেশ ও রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করেই সৈকত দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন নানা বয়সী পর্যটক।
এ দিকে, বৈরি আবহাওয়ায় পর্যটক আসা নিয়ে শুরুতে শঙ্কায় থাকলেও শেষপর্যন্ত তা কেটে যাওয়ায় খুশি পর্যটন ব্যবসায়ীরা। আর পর্যটকদের নিরাপত্তায় বাড়তি সতর্কতা রয়েছে বলে জানান পুলিশ। পর্যটন ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রতিবছর ঈদের ছুটিসহ নানা ছুটিতে ব্যাপক সংখ্যক পর্যটকের ভিড় হয় কক্সবাজারে। কিন্তু এবার শুরুর দিকে দূর্যোগপূর্ণ কারণে পরিস্থিতি ভিন্ন হলেও সব কিছু উপেক্ষা করে ব্যাপক আগমন ঘটেছে পর্যটকদের। যার ফলে খুশি ব্যবসায়ীরা। কক্সবাজারের হোটেল লং বিচ-এর হেড অব অপারেশন মোহাম্মদ তারেক বলেন, ‘এবারের মৌসুমটা বৃষ্টির দখলে। এরপরও ঈদে পর্যটকদের ভ্রমণ বেশ ভালো হয়েছে। আমাদের হোটেলের প্রায় সব রুম বুকিং ছিল।’
কক্সবাজার হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম সিকদার বলেন, ‘কক্সবাজারে ৪ শতাধিক হোটেল মোটেল, কটেজ ও আবাসিক হোটেল রয়েছে। সবক’টি হোটেল এবারের ঈদে বুকিং হয়ে গেছে। শুরুর দিকে বৃষ্টি হলেও পরে ব্যাপক হারে পর্যটক এসেছে। যার ফলে ব্যবসায়ীদের মুখে হাসি ঝিলিক। এছাড়া শহরের বাইরে হিমছড়ি, ইনানী, টেকনাফ, রামু, মহেশখালীসহ গুরুত্বপুর্ণ এলাকায় অবস্থিত কটেজগুলোতেও পর্যটকদের আগাম ছিল ব্যাপক। এসব এলাকায় জেলা পুলিশ ও ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার ছিল।’
ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার ফজলে রাব্বি বলেন, বৈরী আবহাওয়া থাকলেও এবার ঈদের ছুটিতে বিপুল পরিমাণ পর্যটকের সমাগমন ঘটেছে। তাদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে আমরা পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছি। সৈকত এলাকায় শতাধিক পোশাকধারী পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে ছিনতাই প্রতিরোধে টহল পুলিশ ও সাদা পোষাকে পুলিশ নিয়োজিত রয়েছে। কন্ট্রোল রুম, পর্যবেক্ষণ টাওয়াসহ পুরো সৈকত পুলিশের নজরদারিতে রয়েছে।