বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১
Space Advertisement
Space For advertisement
  • প্রচ্ছদ » Uncategorized » ঘাতকরা স্বাধীন রাষ্ট্রকে লুটেপুটে খাওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে- পরিকল্পনা মন্ত্রী


ঘাতকরা স্বাধীন রাষ্ট্রকে লুটেপুটে খাওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে- পরিকল্পনা মন্ত্রী


আমাদের কুমিল্লা .কম :
16.08.2018

“গো বাংলাদেশ, ফলো শেখ হাসিনা”- রেলপথ মন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছে- এমপি বাহার

মাসুদ আলম।।
বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আ হ ম মুস্তফা কামাল লোটাস বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ও ঘাতক মোশতাক ও ডালিমরা স্বাধীন রাষ্ট্রকে লুটেপুটে খাওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে। সে অপশক্তি সফল হতে পারেনি। আমাদের দুঃখ রয়ে গেল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর তার স্বপ্নের বাংলাদেশকে নিজ হাতে গড়তে পারেননি। পাকিস্তানি ঘাতক, অত্যাচারী শাসকদের কাছ থেকে বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন বাংলাদেশ উপহার দিয়েছেন। বুধবার কুমিল্লা নগরীর রাম ঘাটলায় আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে জাতীয় শোকদিবস ও ১৫ আগস্ট উপলক্ষে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগের আয়োজিত দোয়া ও আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, রাখাল-রাজা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে তরুণ ও যুব সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির বাংলাদেশ গড়তে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য শেখ হাসিনা একজন সফল প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশকে উন্নয়নে শিখরে পৌঁছে দিতে আমরা কাজ শুরু করেছি। জানি না হয়তো আমরা শেষ করতে পারবো না। আমরা যেখানে রেখে যাবো তোমরা সেখান থেকে শুরু করতে হবে। তোমরাই সফল হবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশকে সম্পূর্ণরূপে বাস্তবায়ন করতে।

“গো বাংলাদেশ, ফলো শেখ হাসিনা”- রেলপথ মন্ত্রী
শোক সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রেলপথ মন্ত্রী ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল হক বলেন, অপশক্তি এবং বিরোধীমহল বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের নির্মমভাবে হত্যা করেছেন। হত্যাকা-ের পর একটি বর্বর আইন পাশ করা হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু ও তার সহপরিবারের হত্যাকারীদের কোন বিচার করা যাবে না। ডালিমরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে ইতিহাসে একটি কলঙ্কিত অধ্যায় সৃষ্টি করেছে। স্বাধীনতা বিরোধী ঘাতকরা বঙ্গবন্ধকে ১৫ আগস্ট রাতে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। ঘাতকরা চেয়েছিল বঙ্গবন্ধু হত্যা করে ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে দিবে, কিš ‘সেটা ছিল ব্যর্থ প্রয়াস। বর্তমানে যতদিন যাচ্ছে বঙ্গবন্ধুর নাম বাংলার জমিনে আরও উজ্জ্বল হচ্ছে। মানুষের হৃদয়ে আরও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। পৃথিবীর নামটা যতদিন থাকবে ততদিন বিশ্বে বঙ্গবন্ধুর নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।
তিনি বলেন, শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা করা হলেও বর্তমান বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি কেউ থামাতে পারেনি। আজ তার কন্যার উন্নয়ন ও যুগান্তকারি কর্মকা-ের সুনাম করছে সারা বিশ্ব। পৃথিবীর নীতি নির্ধারকরা বলতেছেন “গো বাংলাদেশ, ফলো শেখ হাসিনা।”

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছে- এমপি বাহার
কুমিল্লা ৬ আসনের এমপি ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার বলেন, ঘাতকরা ভেবেছিল জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করে বাংলাদেশকে থমকে দেওয়া যাবে। কিন্তু সেই ঘাতক চক্রান্তকারীদের স্বপ্ন সফল হয়নি। আজ তার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছে।
তিনি বলেন, আজকের শিশু আগামীতে একটি সুন্দর, সমৃদ্ধ ও সোনার বাংলাদেশে বাস করতে পারবে। আমাদের ছেলে-মেয়েরা আমাদের বিভিন্ন অর্জনে আমাদেকে এগিয়ে নিয়ে যাছে।
দোয়া ও আলোচনা সভায় এসময় উপস্থিত ছিলেন, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযুদ্ধ জসিমউদ্দিন চৌধুরী, আলকাছুর রহমান খোকা, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জোবেদা খাতুন পারুল, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন স্বপন, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক নূর-উর-রহমান মাহমুদ তানিম, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পার্থ সারথি দত্ত, জাহাঙ্গীর আলম রতন, দপ্তর সম্পাদক রুপম মজুমদার, সাংকৃতিক সম্পাদক আশিকুন নবী বাপ্পী।
এর আগে কুমিল্লা জেলা প্রশাসন ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সংসদ শোক র‌্যালি করা হয়। র‌্যালি শেষে কুমিল্লা নগরীর নগর উদ্যানে জাতির জনকের ম্যুরালে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
র‌্যালিতে উপস্থিত ছিলেন, কুমিল্লা ৬ আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার, কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর, কুমিল্লা জেলা প্রশাসক সৈয়দ নূরুল ইসলাম, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মামুন প্রমুখ।