মঙ্গল্বার ১৫ জুন ২০২১


সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরীর জীবন সংকটাপন্ন


আমাদের কুমিল্লা .কম :
07.06.2020

চাঁদপুর প্রতিনিধি ।।
চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরী গত আড়াই মাস যাবত গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় শহরের নাজিরপাড়ায় নিজ বাসায় দিন কাটাচ্ছেন। বর্তমানে তার জীবন সংকটাপন্ন। এ মুহূর্তে তার জীবন বাঁচাতে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরীর পরিবার সদস্যরা।
ইকরাম চৌধুরী চ্যানেল আইয়ের স্টাফ রিপোর্টার, জাগো নিউজের জেলা প্রতিনিধি এবং স্থানীয় দৈনিক চাঁদপুর দর্পণের সম্পাদক ও প্রকাশক।
পরিবারের সদস্যরা জানান, লকডাউনের কারণে এই মুহূর্তে তাকে ঢাকায়ও নিতে পারছেন তারা। তার শারীরিক অবস্থার কখনও উন্নতি আবার কখনও অবনতি ঘটছে। বাসায় সেভাবে চিকিৎসাও হচ্ছে না। এখন শুধু ওষুধের ওপর চলছে। প্রতিদিনই তাকে তিন থেকে চার হাজার টাকার ওষুধ সেবন করতে হচ্ছে। বর্তমানে তার দুটি কিডনিই সম্পূর্ণ অকেজো। ঠিক মতো খেতে পারছেন না। নড়া-চড়াও করতে পারছেন না। ডাক্তারদের পরামর্শ অনুযায়ী উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ভারতে নেয়া প্রয়োজন। সেখানে কিডনি প্রতিস্থাপন করতে হবে। এ জন্য প্রচুর টাকার প্রয়োজন।
সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরীর ছেলে মো. আবরার চৌধুরী ও মেয়ে ইসরাত জাহান চৌধুরী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তাদের বাবার জীবন বাঁচাতে আকুল আবেদন জানিয়েছেন। তারা বলেন, আমাদের বাবার চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকরাম চৌধুরীর জীবন সংকটাপন্ন। এ মুহূর্তে তার জীবন বাঁচাতে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। ভারতে গিয়ে তার শরীরে এখনই একটি কিডনি প্রতিস্থাপন করা প্রয়োজন। এ জন্য জন্য ৩৫ লক্ষাধিক টাকা ব্যয় হতে পারে। কিন্তু এতো টাকা ব্যয় করা আমাদের পরিবারের পক্ষে মোটেও সম্ভব নয়। আমরা দুই ভাই-বোন এখনও অধ্যায়নরত।
তারা আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের আর্জি- আপনি আর্থিক সহায়তা দিয়ে আমাদের বাবাকে বাঁচান। আপনার আন্তরিক সহযোগিতা পেলে নিশ্চয়ই আমাদের বাবা আল্লাহর রহমতে সুস্থ হয়ে দেশের কল্যাণে আবারও সাংবাদিকতা পেশায় ফিরে আসতে পারবেন। আমারা বিশ্বাস করি চাঁদপুরের কৃতী সন্তান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি মহোদয় বিষয়টি অবগত আছেন। তার মাধ্যমে বিনীতভাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ আর্থিক সহযোগিতার আর্জি করছি।
চাঁদপুরের সাংবাদিকরা জানান, এ মুহূর্তে সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরীর জীবন বাঁচাতে তার পরিবার প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। চাঁদপুরের কৃতী সন্তান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে আর্থিক সহযোগিতা পেলে ভারতে নিয়ে ইকরাম চৌধুরীর কিডনি প্রতিস্থাপন করা হবে।
এদিকে সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরীর সহযোগিতায় ইতোমধ্যে অনেকেই এগিয়ে এসেছেন। বিশেষ করে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, চাঁদপুর জেলা প্রশাসন, চাঁদপুর প্রেসক্লাব, চাঁদপুর টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরাম, চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ ফাউন্ডেশনসহ আরও অনেকেই আর্থিক সহযোগিতা করেছেন। কিন্ত তার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিশাল অংকের অর্থের প্রয়োজন। তাই ব্যক্তিগত কিংবা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকেও তার চিকিৎসার জন্য আর্থিক সাহায্যে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সাংবাদিকরা।
এ ব্যাপারে সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরীর ছোট ভাই চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শরীফ চৌধুরী বলেন, ইকরাম ভাই দীর্ঘদিন যাবৎ গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় শহরের নাজিরপাড়ায় নিজ বাসায় দিন কাটাচ্ছেন। তার দুটি কিডনিই অকেজো হয়ে গেছে। তিনি দীঘদিন যাবৎ কিডনি, ডায়াবেটিক ও হৃদরোগসহ নানা জটিল রোগেও আক্রান্ত। তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। তার উন্নত চিকিৎসার জন্য শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করছি। এ মুহূর্তে তার জীবন বাঁচাতে বিদেশে চিকিৎসার ব্যবস্থার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করছি।
চাঁদপুরের প্রবীণ সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরী প্রায় ৩ যুগ ধরে সাংবাদিকতা পেশায় রয়েছেন। একজন শতভাগ পেশাদার সাংবাদিক হিসেবে সারা জীবন পেশাদারিত্ব নিয়ে কাজ করেছেন। নিজের জন্য তেমন কিছুই করেননি। এক সময় তিনি সিভিল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে বিসিকে চাকরি করতেন। সাংবাদিকতার এতই নেশা ছিলো যে সরকারি চাকরি ছেড়ে তিনি সাংবাদিকতায় সারা জীবন কাটিয়ে দিলেন। প্রকাশক ও সম্পাদক হিসেবে বের করেছেন চাঁদপুর জেলা থেকে প্রথম সরাসরি দৈনিক পত্রিকা দৈনিক চাঁদপুর দর্পণ। এখন তার জীবন সংকাটাপন্ন। তার পাশে দাঁড়াতে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তারা।
সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরী গত বছর ঢাকার ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে হার্টের ব্লক অপারেশন করিয়েছিলেন। তিনি ডায়াবেটিক, হার্ট ও কিডনির সমস্যায় ভুগছেন। তাকে গত দুই বছরে চাঁদপুর ও ঢাকায় কয়েকবার চিকিৎসা করানো হয়েছে। বর্তমানে তিনি স্ত্রী আসমা আক্তার, এক ছেলে ও এক মেয়ের সঙ্গে শহরের নাজিরপাড়ায় নিজ বাসায় রয়েছেন। সাংবাদিক ইকরাম চৌধুরীর দ্রুত সুস্থতার জন্য দোয়া কামনা করেছেন পরিবারের সদস্যরা।