মঙ্গল্বার ১৫ জুন ২০২১
  • প্রচ্ছদ » sub lead 1 » বিয়ের ১৬দিনের মাথায় মিমের মরদেহ ঝুলছে আম গাছে


বিয়ের ১৬দিনের মাথায় মিমের মরদেহ ঝুলছে আম গাছে


আমাদের কুমিল্লা .কম :
06.05.2021

সৈয়দ খলিলুর রহমান বাবুল, দেবিদ্বার ঃ
হাতের মেহেদির রং না শুকাতেই নববধূ স্বর্ণার আক্তার মিম চলে গেলেন না ফেরার দেশে। যাওয়া হলো না স্বামীর বাড়ি। বাবার বাড়ির পুকুর পাড়ে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় মিললো তার লাশ। স্বামীর দাবি তাকে হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।
ঘটনাটি ঘটেঠেছে বৃহস্পতিবার ভোর রাতে দেবিদ্বার উপজেলার ধামতী উত্তর পাড়া বস্কর আলীর বাড়িতে। দেবিদ্বার থানা পুলিশ বাবার বাড়ির পুকুরপাড়ের আম গাছ থেকে গলায় ফাঁস লাগানো নববধূ স্বর্ণা আক্তারের (১৯) লাশ উদ্ধার করে।
স্থানীয়রা জানায়, গত ১৯ এপ্রিল দেবিদ্বার উপজেলার ধামতী উত্তর পাড়া বস্কর আলীর বাড়ির মৃত মোঃ সামসুল হক (সুন্দর আলী)’র মেয়ে ধামতী হাবিবুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী স্বর্ণা আক্তার মিমের সাথে একই গ্রামের রহিম মাস্টারের ছেলে মো. কামরুল হাসানের সাথে প্রেমের সম্পর্কের কারণে কোর্টে বিয়ে হয়। ছেলের পরিবার এই বিয়ে মেনে না নেওয়ায় বিয়ের পর থেকে মিম তার বড় বোনের বাসায় দেবিদ্বারে থাকতেন। তার মা নাজমা বেগম ঢাকায় আত্মীয়র বাসায় যাওয়ার কারণে ছোট ভাইকে সঙ্গ দিতে গত শনিবার স্বর্ণা দেবিদ্বার থেকে ধামতী বাবার বাড়িতে আসেন। বুধবার দিবাগত রাতে সে তার ছোট ভাই ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী নাবিল আহমেদকে নিয়ে তাদের ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। ভোর রাতে সেহরি খাওয়ার সময় হলে তার বড় বোন শিল্পি আক্তার মোবাইল ফোন বন্ধ পেয়ে পাশের ঘরের চাচিকে ফোন করে বিষয়টি বলেন। এসময় স্বর্ণার বড় চাচা সিরাজুল ইসলাম ও তার স্ত্রী দরজায় গিয়ে ডাকাডাকি করলে এক পর্যায়ে ছোট ভাই নাবিল ঘুম থেকে উঠে দরজা খুলে দিলে, চাচা-চাচি গিয়ে দেখে স্বর্ণা ঘরে নেই। ঘরের পিছনের দরজা খোলা। খোঁজা-খুঁজির এক পর্যায়ে ঘরের পেছনে পুকুর পাড়ে গাছের সাথে গলায় ফাঁস লাগানো স্বর্ণার লাশ ঝুলতে দেখে।
নিহত নববধূর স্বামী মো. কামরুল হাসান জানান, সে কুমিল্লা কমার্স কলেজে শিক্ষকতা করতেন। করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে কলেজ বন্ধ থাকায় দেবিদ্বার তার বড় ভায়রা ভাইয়ের ব্যবসা দেখা শোনা করছিলেন এবং বৌ নিয়ে ভায়রা আইয়ুব আলীর বাসায় থাকতেন। স্ত্রীর সাথে বিয়ের পর থেকে এ পর্যন্ত কোনো কলহ হয়নি। রাত ১২টার দিকে তার সাথে আমি ফোনে কথা বলছি। ভোর রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে তার মৃত্যুর সংবাদে পেয়ে দেবিদ্বার থেকে ধামতী এসেছি। আমার স্ত্রী আত্মহত্যা করতে পারে না। হয়তো তাকে কেউ হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রেখেছে। সুষ্ঠু তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করছি।
এ ব্যাপারে দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো, আলিফুর রহমান জানান, সকালে সংবাদ পেয়ে ধামতী থেকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় স্বর্ণা আক্তার মিমের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।